হযরত আব্দুল্লাহ বিন মুবারক হজের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছেন । সাথে একটি কাফেলা। কাফেলার একটি মুরগী মারা গেল, কেউ সেটা ডাষ্টবিনে ফেলে দিল, মৃত মুরগী ফেলে চলে যেতেই পাশের বস্তি থেকে একটি মেয়ে মুরগীটি তুলে কাপড়ে পেচিয়ে চলে যেতে লাগল ।

দৃশ্যটি  হযরত আব্দুল্লাহ বিন মুবারক লক্ষ করলেন, গভীরভাবে চিন্তা করলেন। মেয়েটি মৃত মুরগীটি কেন নিল। সাথে সাথে মেয়েটিকে ডাক দিলেন।

মিয়েটিকে জিজ্ঞেস করলেন, কি কারণে সে মৃত মুরগী নিয়ে যাচ্ছে। অনেক পিড়াপিড়ির পর মেয়েটি বলল,

জনাব! কিছুদিন পূর্বে আমার পিতা ইন্তেকাল করেছেন, তিনিই ছিলেন আমাদের সংসারের একমাত্র উপার্যক । বাড়িতে আমি আর আমার আম্মা, ঘরে খাবার কিছু নেই। কয়েক দিন যাবত ক্ষুধার্ত।

ক্ষুধার কষ্ট সহ্য করতে না পেরে মৃত মুরগীটি নিতে বাধ্য হয়েছি। মেয়েটির কথা শুনে হযরত আব্দুল্লাহ বিন মুবারকের হৃদয় কেপে উঠে।

ভাবতে থাকেন, আল্লাহর এসব বান্দারা অনাহারে মৃত প্রাণী খেতে বাধ্য হচ্ছে আর আমি হজ্জ করতে যাচ্ছি তা কী করে হয়।

খাদেমকে জিজ্ঞেস করলেন, তােমার কাছে কী পরিমাণ টাকা আছে? খাদেম বলল, দু’ হাজার দীনার।

তিনি বললেন, বাড়ি যেতে কত টাকা লাগবে? খাদেম বলল, প্রায় বিশ দীনার ।

তিনি বললেন, বিশ দীনার রেখে বাকী টাকা ওকে দিয়ে দাও, এ বছর ওখানেই হজ্বমওকুফ করে দিলাম।

আশা করি এইরকমের অসহায়কে সাহায্য করলে আল্লাহ তায়ালা হাজার প্রতিদান দান করবেন, অতঃপর বাড়িতে ফিরে এলেন।

দ্বীনি কথা শেয়ার করে আপনিও ইসলাম প্রচারে অংশগ্রহণ করুন।